পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে রাস্তায় গৃহিণীরা, ১০ দিন পেঁয়াজ বর্জনের ঘোষণা

দামে অতীতের সব রেকর্ড টপকে নাগালের বাইরে চলে যাওয়া নিত্যপণ্য পেঁয়াজকে আগামী দশদিন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন সিলেটের গৃহিণীরা। টানা দুই মাস ধরে অস্বাভাবিক হারে মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে তাদের এই সিদ্ধান্ত।

বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে নগরীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে এক মানববন্ধন থেকে এই ঘোষণা দেন তারা। ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধনে সাবেক সাংসদ, চাকরিজীবী থেকে শুরু করে স্থানীয় গৃহিণীরা এই কর্মসূচিতে অংশ নেন।

মানবন্ধনে গৃহিণীরা বলেন, ‘সিণ্ডিকেট করে পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। পেঁয়াজ একটি নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য, রান্নাকে সুস্বাদু করার জন্য পেঁয়াজের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু তাই বলে পেঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি কোনও ভাবেই মেনে নেয়া যায় না।’

এজন্য পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে গৃহিণীদের এগিয়ে আসতে হবে। রান্নার কাজে আগামী ১০ দিন পেঁয়াজ বয়কট করতে হবে। এতে মজুদদাররা সঠিক জবাব পাবে বলে তারা মন্তব্য করেন।

এসময় গৃহিণীরা দ্রুত এই সংকট নিরসনে সরকারের কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান। মানববন্ধন চলাকালে ‘পেঁয়াজ খাবো না’, ‘পেঁয়াজ কিনব না, ‘পেঁয়াজ বর্জন করুন’, ‘সিন্ডিকেটকে রুখে দাঁড়াও’ লেখা পোস্টার হাতে নিয়ে রাস্তার পাশে দাঁড়ান গৃহিণীরা।

গৃহিণীরা বলেন, ‘বর্তমান সময়ে পেঁয়াজের ঊর্ধ্বমূল্যে তারা শঙ্কিত। এমন সংকটময় মুহূর্তে গৃহিণীদেরও সচেতন হওয়া উচিত।’

প্রায় ঘণ্টাব্যাপি মানববন্ধন চলাকালে তারা আগামী দশদিন সবাইকে পেঁয়াজ বর্জন করার আহবান জানান। ঘটনাস্থলে উপস্থিত ব্যক্তিরা গৃহিণীদের এই মানববন্ধনকে স্বাগত জানান।

মানববন্ধনে অংশ নেন সাবেক সংসদ সদস্য জেবুন্নেচ্ছা হক, নারী নেত্রী নুরুন নাহার বেবি,ফরিদা আলম, সামসুন্নাহার মিনু, ফাতেমা জান্নাত, ইয়াছমিন চৌধুরী, মারিয়াম চৌধুরী মাম্মি, নিলিমা হক ও শাহেনা বেগম চৌধুরী প্রমুখ।

Comments

comments