ক্যান্সারে ধুঁকে ধুঁকে কারাগারেই মারা গেলেন ফিলিস্তিনি

ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে অবশেষে ইসরাইলি কারাগারে মারা গেলেন সামি আবু দিয়াক নামের এক ফিলিস্তিনি।

মঙ্গলবার এক কর্মকর্তার বরাতে দোহাভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরা এমন খবর দিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, ওই ফিলিস্তিনি ক্যান্সারের আক্রান্ত হলেও তাকে চিকিৎসা নিতে দেয়া হয়নি।

অধিকৃত পশ্চিমতীরে এমন এক সময় এই মৃত্যুর খবর প্রচার করা হয়েছে, যখন অঞ্চলটিতে উত্তেজনা চলছে। দিন শেষে ভূখণ্ডটিতে বিক্ষোভের পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

দখলদার ইসরাইলের অবৈধ বসতি স্থাপনে মার্কিন সমর্থনের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে এ বিক্ষোভের ডাক দেয়া হয়েছে। ফিলিস্তিনিরা দিনটিকে ক্ষোভের দিবস হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন।

বিক্ষোভে সামি আবু দিয়াকের মুক্তির আহ্বান জানানোর কথা ছিল। দ্বিতীয় ফিলিস্তিনি ইন্তিফাদার সময় ১৭ বছর আগে তিনি গ্রেফতার হয়েছিলেন।

ফিলিস্তিনি সংবাদসংস্থা আল-ওয়াফার খবরে বলা হয়েছে, ৩৬ বছর বয়সী সামি আবু দিয়াকের বাঁচার আশা আগেই ত্যাগ করা হয়েছিল। ক্যান্সারে তিনি মৃত্যুর দ্বারপ্রান্তে পৌঁছালেও তার প্রতি করুণা দেখায়নি ইসরাইলিরা।

এভাবে কারাগারে ধুঁকে ধুঁকে মরতে হয়েছে তাকে। দুই সপ্তাহ আগেই তার স্বাস্থ্য খারাপের দিকে যাচ্ছিল। জীবনের শেষ দিনগুলো তিনি মা ও পরিবারের সঙ্গে কাটাতে চেয়েছিলেন।

এ মৃত্যুর জন্য ইসরাইলকে দায়ী করছেন ফিলিস্তিনি প্রেসিডেন্ট। তিনি বলেন, ফিলিস্তিনি বন্দিদের প্রতি ইসরাইলি দখলদার কর্তৃপক্ষের ইচ্ছাকৃত চিকিৎসা অবহেলার শিকার হয়েছেন আবু দিয়াক।

ইসরাইলি কর্তৃপক্ষের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মারাত্মক অসুস্থ এক অজ্ঞাতনামা বন্দিকে কারাগার থেকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর মারা গেছেন।

২০১৫ সালে প্রথম উদরে ব্যথার কথা জানিয়েছিলেন তিনি। এরপর ব্যথানাশক দিয়ে তার চিকিৎসা করা হয়। দুই সপ্তাহ পরে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এরপর তাকে ইসরাইলি সরোকা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

তখন অন্ত্রের কয়েকটি অংস সরিয়ে ফেলতে তার অস্ত্রপচার করা হয়। এসময় তার ক্যান্সার শনাক্ত করা হয়েছে।

Comments

comments