আবারও উত্তপ্ত রাজপথ, বিএনপির মিছিলে পুলিশের লাঠিচার্জ

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে হাইকোর্টের সামনে বিক্ষোভ ও অবস্থান কর্মসূচি পালনের সময় বিএনপি নেতাকর্মীদের উপর লাঠিচার্জ করেছে পুলিশ। এ সময় পুলিশের সাথে কর্মীদের ধাওয়া–পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম দলের নেতৃত্বে মঙ্গলবার দুপুরের দিকে প্রেসক্লাবে ছোট ছোট দল এসে সংগঠিত হয়ে হাইকোর্টের দিকে এগোতে থাকেন। হাইকোর্টের প্রধান ফটক থেকে মাজার গেট পর্যন্ত তারা অবস্থান নিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তি, পেঁয়াজসহ নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে স্লোগান দিতে থাকেন নেতা কর্মীরা।

মিছিলে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমদ, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীসহ অন্যান নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুর দেড়টার দিকে মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম দলের নেতাকর্মীরা জাতীয় প্রেসক্লাব এলাকা থেকে সংগঠিত হয়ে সুপ্রিম কোর্টের সামনে এসে অবস্থান নেন। সেখানে সড়কে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় তারা খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। পরে পুলিশ এসে বাধা দিলে উভয়পক্ষে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় ইট পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

বিক্ষোবের এক পর্যায়ে পুলিশ লাঠিচার্জ শুরু করলে বিএনপি নেতাকর্মীরা ওই এলাকায় কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করে। পরে পুলিশ আরও মারমুখী হলে বিএনপি নেতাকর্মীরা ফের প্রেসক্লাবের দিকে চলে যায়। সেখানে তারা সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে।

সমাবেশে দেয়া বক্তৃতায় বিএনপি নেতারা খালেদা জিয়ার দ্রুত মুক্তি দাবি করেন। অন্যথায় দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার ঘোষণা দেয়। বক্তারা নেতাকর্মীদের ওপর পুলিশি হামলার নিন্দা জানায়।

বিক্ষোভ কর্মসূচীতে নেতৃত্ব দেয়া বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেছেন, জনগ‌নের অধিকার আদা‌য়ের জন্য রাস্তায় নামাটা অসাংবিধানিক বা আইন বিরোধী নয়। জনগণ রাষ্ট্র ক্ষমতার মালিক হওয়া সত্ত্বেও সব কিছু থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

তিনি বলেন, দেশে বর্তমানে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য ঊর্ধ্বগতি। পেঁয়াজ, চাল, তেল জনগণের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে যাচ্ছে। এসকল বিষয় নিয়ে আমাদের বিরোধীদলের আন্দোলন করার অধিকার আছে। জনগণের অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার জন্য আন্দোলন করার অধিকার আমাদের আছে।

সরকারের উদ্দেশ্যে নোমান বলেন, অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন। নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য উর্দ্ধগতি হয়েছে তা নিম্নগামী করুন। এবং দেশ চালাতে ব্যর্থ হওয়ার জন্য পদত্যাগ করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে পুনঃনির্বাচন দিন।

এ সময় তিনি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আমরা আন্দোলন, মিছিল অবস্থান কর্মসূচি করছি। এটা সংবিধানের বহির্ভূত নয়। তাই আপনাদেরকে আহ্বান জানাব আমাদের নেতা কর্মীদেরকে বাধা না দিয়ে আমাদের কর্মসূচি পালন করতে দিন। এ সময় অসংখ্য নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Comments

comments