‘ভারতের সুপ্রিমকোর্টকে গ্রাস করেছে হিন্দুত্ববাদী চেতনা’

কয়েক দশকের আইনি লড়াইয়ের পর শনিবার উত্তর প্রদেশের অযোধ্যায় বাবরি মসজিদ মামলার রায় দিয়েছে ভারতের সুপ্রিমকোর্ট।

এতে প্রায় পাঁচশ বছর আগে নির্মিত মসজিদটির জমি মন্দির নির্মাণে হিন্দুদের দিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বর মসজিদটি ভেঙে মাটিতে মিশিয়ে দেয় দেশটির হিন্দুত্ববাদীরা।

আর মসজিদ নির্মাণে মুসলমানদের শহরের অন্যত্র পাঁচ একরের একখণ্ড জমি দিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে ভারত সরকারকে।

ভারতের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈর নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চ এ রায় দিয়েছে।

বাবরি মসিজদ মামলার রায় নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল তার ফেসবুক পেজে মন্তব্য করেছেন।

তিনি লিখেছেন, ‘ভারতের দু’একটা প্রতিষ্ঠান ছিল গর্ব করার মতো। এরমধ্যে অন্যতম সুপ্রিমকোর্ট। কিন্তু হিন্দুত্ববাদী শাসনামলের চেতনা যে এ আদালতকেও গ্রাস করেছে তার প্রমাণ হচ্ছে বাবরি মসজিদ সংক্রান্ত রায়।

কেউ যেন সংখ্যা লঘুদের ক্ষতি করতে না পারে সে ব্যাপারে সতর্ক বর্তা দিয়ে তিনি লিখেছেন, কেউ অধম হলে আমরা উত্তম হব না কেন?’

সংবাদের পাঠকদের জন্য আসিফ নজরুলের হুবহু স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো:

‘ভারতের দু’একটা প্রতিষ্ঠান ছিল গর্ব করার মতো। এরমধ্যে অন্যতম সুপ্রিমকোর্ট। কিন্তু হিন্দুত্ববাদী শাসনামলের চেতনা যে এ আদালতকেও গ্রাস করেছে তার প্রমাণ হচ্ছে বাবরি মসজিদ সংক্রান্ত রায়।

তবে এ রায় আমাদের যত কষ্ট দিক না কেন, মনে রাখতে হবে যে এর সঙ্গে বাংলাদেশের সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর কোনো রকম সম্পর্ক নেই। ফলে রায়ের কারণে কেউ যেন তাদের কোনো ক্ষতি করতে না পারে, সে ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে আমাদের প্রত্যেককে।

কেউ অধম হলে আমরা উত্তম হব না কেন?

Comments

comments