ঢাকা উত্তর স্বেচ্ছাসেবকলীগের দুই পক্ষে তুমুল সংঘর্ষ

  • চেয়ারে বসাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের সূত্রপাত

ঢাকা মহানগর উত্তরের সম্মেলন শুরুর আগেই দুই সভাপতি প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় একে অপরের দিকে চেয়ার ছুড়ে মারেন সভাপতি প্রার্থী ফরিদুর রহমান ইরান ও ইসহাক মিয়ার সমর্থকরা।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে সম্মেলন উদ্বোধনের আগে চেয়ার দখলকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় পুরো সম্মেলন জুড়ে বিশৃঙ্খলা ও নেতাকর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

শুরুতে দুই নেতার অনুসারীদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। একপর্যায়ে তা হাতাহাতিতে রূপ নেয়। পরে তাদের মধ্যে মারামারি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এ সময় দুই পক্ষই একে অপরকে সম্মেলনে রাখা চেয়ার ছুড়ে মারেন। পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে থাকলে ইসহাকের সর্মথকরা সম্মেলনস্থল ছেড়ে পাশে অবস্থান নেন। এ সময় ক্যামরাম্যানসহ কয়েকজন আহত হন। পরে সিনিয়র নেতারা ও পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

ইসহাক মিয়া ছাত্রলীগের ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার সাবেক সভাপতি। অন্যদিকে, ফরিদুর রহমান খান ইরান ঢাকা মহানগর উত্তর স্বেচ্ছাসেবক লীগের বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক। তারা দু’জনই সভাপতি প্রার্থী।

এর আগে ২০০৬ সালের ৩১ মে ঢাকা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওই সম্মেলনের মধ্য দিয়ে ঢাকা মহানগরকে উত্তর ও দক্ষিণে ভাগ করে দুটি কমিটি ঘোষণা করা হয়। উত্তরের সভাপতি নির্বাচিত হন মোবাশ্বের চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক হন ফরিদুর রহমান খান ইরান। দক্ষিণের সভাপতি নির্বাচিত হন দেবাশীষ বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক হন আরিফুর রহমান টিটু।

Comments

comments