বাংলাদেশের লক্ষ্য ১৭৫

রোহিত শর্মা ও শিখর ধাওয়ানকে দ্রুত ফিরিয়ে বাংলাদেশকে দারুণ শুরু এনে দিয়েছিলেন শফিউল ইসলাম। তবে লোকেশ রাহুল ও শ্রেয়াস আয়ারের ফিফটিতে বিশাল পুঁজি গড়েছে ভারত। সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে টাইগারদের ১৭৫ রানের লক্ষ্য দিয়েছে ভারত।

টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৭৪ রান করে ভারত। শ্রেয়াস আয়ার সর্বোচ্চ ৬২ রান করেন। তার ৩৩ বলের ইনিংস ছিল ৩টি চার ও ৫টি ছক্কা। রাহুল ৩৫ বলে করেন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫২ রান। ৭ চারে নিজের ইনিংস সাজান তিনি।

বাংলাদেশের পক্ষে সর্বাধিক ২টি করে উইকেট নিয়েছেন শফিউল ইসলাম ও সৌম্য সরকার। অন্য উইকেটটি নিয়েছেন আল-আমিন হোসেন।

সৌম্যর জোড়া আঘাত

দুর্দান্ত ফিফটি তুলে নেওয়া শ্রেয়াস আয়ারকে ফেরালেন সৌম্য সরকার। তার আগে একই ওভারে রিশভ পন্তের উইকেটও তুলে নিয়েছেন সৌম্য।

১৭তম ওভারের প্রথম বলেই পন্তকে ফেরান সৌম্য। ব্যক্তিগত ৬ রান করে পার্টটাইম বোলার সৌম্যর বলে বোল্ট হন তিনি (১৩৯/৪)। এরপর ওভারের পঞ্চম বলে আয়ার লিটন দাসের হাতে ক্যাচ হন। ৩৩ বলে ৩ চার ও ৫ ছক্কায় ৬২ রান করেছেন আয়ার। ১৬.৫ ওভারে ১৪৪ রানে ৫ উইকেট হারিয়েছে ভারত।

আয়ারকে জীবন দেওয়ার মাশুল গুনছে টাইগাররা

শূন্য রানে জীবন পেয়ে বিস্ফোরক হয়ে উঠেছেন শ্রেয়াস আয়ার। লোকেশ রাহুলের সঙ্গে তৃতীয় উইকেটে গড়েছেন ৫৯ রানের জুটি। রাহুল ফিফটি তুলে নিয়ে ফিরলেও আয়ার হয়ে উঠেছেন ভয়ংকর। ১৫তম ওভারের প্রথম তিন বলেই আফিফ হোসেনকে হাঁকালেন বিশাল তিন ছক্কা। ২৬ বলে তুলে নিয়েছেন ফিফটি। টি-টোয়েন্টিতে এটিই তার প্রথম ফিফটি।

১৫ ওভার শেষে ভারতের স্কোর ১২৯/৩। আয়ার ৫০ ও রিশভ পন্ত ৫ রান নিয়ে ব্যাট করছেন।

ফিফটি তুলে নেওয়া রাহুলকে ফেরালেন আল-আমিন

রোহিত শর্মা ও শিখর ধাওয়ান ফিরেছিলেন দ্রুত। দুজনকেই ফিরিয়ে দেন শফিউল ইসলাম। ৩৫ রানে ২ উইকেট হারায় ভারত। তবে লোকেশ রাহুলের ব্যাটে সেই ধাক্কা কাটিয়ে উঠে স্বাগতিকেরা। তার সঙ্গে দারুণ খেলছিলেন শ্রেয়াস আয়ারও।

রাহুল ৩৩ বলে পূরণ করে ফেলেন নিজের ষষ্ঠ টি-টোয়েন্টি ফিফটি। এরপরই অবশ্য আল-আমিনের শিকার হতে হয়েছে তাকে। ১৩তম ওভারে বল করতে এসেই রাহুলকে লিটন দাসের হাতে ক্যাচে পরিণত করেন আল-আমিন। ৩৫ বলে ৭ চারে ৫২ রান করেছেন রাহুল।

১২.১ ওভার শেষে ভারতের স্কোর ৯৪/৩। ২০ রান নিয়ে ব্যাট করা আয়ারের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন রিশভ পন্ত।

আয়ারের ক্যাচ ছাড়লেন বিপ্লব

শিখর ধাওয়ানকে ফেরানোর ওভারেই ফের দলকে উৎসবের উপলক্ষ এনে দিয়েছিলেন শফিউল ইসলাম। কিন্তু স্কয়ারে শ্রেয়াস আয়ারের ক্যাচটা হাতছাড়া করলেন আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। শূন্য রানে জীবন পেলেন আয়ার।

শফিউলের দ্বিতীয় শিকার ধাওয়ান

নিজের প্রথম ওভারেই ফিরিয়ে দিয়েছিলেন রোহিত শর্মাকে। এবার ভারতের আরেক ওপেনার শিখর ধাওয়ানকে নিজের দ্বিতীয় শিকার বানালেন শফিউল ইসলাম। ৫.২ ওভারে ৩৫ রানে দ্বিতীয় উইকেটের পতন হলো ভারতের।

এর আগে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই ২ রান করা রোহিত শর্মাকে ফিরিয়ে দেন শফিউল। মাত্র ৩ রানে প্রথম উইকেট হারায় ভারত। ওই ওভারটা মেডেন উইকেট নেন শফিউল। এরপর অবশ্য লোকেশ রাহুলের সঙ্গে ধাওয়ান পাল্টা আক্রমণের চেষ্টা করলেন। তবে সেটি পণ্ড করেছেন শফিউল।

রাহুলের সঙ্গে এখন জুটি বেঁধেছেন শ্রেয়াস আয়ার। ৬ ওভার শেষে ভারতের স্কোর ৪১/২।

শুরুতেই শফিউলের বলে বোল্ড রোহিত

আগের ম্যাচে একা বাংলাদেশকে হারিয়ে দিয়েছিলেন রোহিত শর্মা। বাংলাদেশের বিপক্ষে বরাবরই ভয়ংকর এই ব্যাটারকে এবার শুরুতেই ফিরিয়ে দিয়েছেন শফিউল ইসলাম। নাগপুরে রবিবার অঘোষিত ফাইনালে টস জিতে বোলিং বেছে নেয় বাংলাদেশ।

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে বল করতে এসে ভারত অধিনায়ককে বোল্ড করেন শফিউল। ১.৩ ওভারে দলীয় ৩ রানেই প্রথম উইকেটের পতন ভারতের।

এর আগে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতেও রোহিতকে ইনিংসের প্রথম ওভারেই ফিরিয়েছিলেন শফিউল। যে ম্যাচে ৭ উইকেটে জয় পায় টাইগাররা।

শিখর ধাওয়ানের সঙ্গে এখন ব্যাট করছেন লোকেশ রাহুল।

এক পরিবর্তন নিয়ে বোলিংয়ে বাংলাদেশ

অঘোষিত ফাইনালে টসে হাসি বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের। টস জিতে প্রথমে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। প্রতিপক্ষ ভারতকে পাঠিয়েছেন ব্যাটিংয়ে।

বাংলাদেশ একাদশে একটি পরিবর্তন এসেছে। ইনজুরির কারণে খেলতে পারছেন অলরাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। তার পরিবর্তে সিরিজে প্রথমবারের মতো একাদশে এসেছেন মোহাম্মদ মিঠুন।

ভারতীয় দলেও একটি পরিবর্তন। ক্রুনাল পান্ডিয়ার জায়গায় খেলছেন মনিশ পান্ডে।

টস জিতে বোলিং নেওয়ার কারণ হিসেবে মাহমুদউল্লাহ শিশিরের কথা উল্লেখ করেছেন। এ ছাড়া ভারত রান তাড়া করে বেশি অভ্যস্ত, সে কথাও বলেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। রোহিত শর্মা জানান, টস জিতলে তারাও আগে বোলিং বেছে নিতেন। সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচেই জয় পেয়েছে পরে ব্যাট করা দল।

বাংলাদেশ একাদশ: লিটন দাস, সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ নাঈম শেখ, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ(অধিনায়ক), আফিফ হোসেন, মোহাম্মদ মিঠুন, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, শফিউল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান ও আল-আমিন হোসেন।

ভারত একাদশ: রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), শিখর ধাওয়ান, লোকেশ রাহুল, শ্রেয়াস আয়ার, রিশভ পন্ত, মনিশ পান্ডে, শিবাম দুবে, ওয়াশিংটন সুন্দর, দীপক চাহার, যুজবেন্দ্র চাহাল, খলিল আহমেদ।

অঘোষিত ফাইনালে মুখোমুখি বাংলাদেশ-ভারত

ভারতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয়ের লক্ষ্যে কিছুক্ষণ পরই মাঠে নামতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। দুই দলের ম্যাচটি শুরু হবে রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায়। নাগপুরের বিদর্ভ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে ম্যাচটি।

দিল্লিতে সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে ভারতকে ৭ উইকেটে হারায় মাহমুদউল্লাহরা। ভারতের মাটিতে যা বাংলাদেশের প্রথম জয়। একই সঙ্গে টি-টোয়েন্টিতেও ভারতের বিপক্ষে সেটিই ছিল প্রথম জয়।

এরপর রাজকোটে সিরিজ জয়ের লক্ষ্য মাঠে নামলেও ৮ উইকেটে হেরে যায় বাংলাদেশ। ভারত সিরিজে সমতা ফেরায়। এই ম্যাচটি তাই অঘোষিত ফাইনালে রূপ নিয়েছে।

এই ম্যাচে পরিবর্তনের ইঙ্গিত রয়েছে দুই শিবিরেই। পেসার খলিল আহমেদকে এই ম্যাচে একাদশের বাইরে রাখার কথা ভাবছে টিম ইন্ডিয়া। অন্যদিকে বাংলাদেশ খেলতে পারে একজন বাঁহাতি স্পিনার নিয়ে। সে ক্ষেত্রে তাইজুল ইসলামের একাদশে আসার সম্ভাবনা প্রবল। এ ছাড়া মোস্তাফিজুর রহমান ও মোসাদ্দেক হোসেনের চোটের সমস্যা রয়েছে। তাই এই দুজন শেষ পর্যন্ত খেলতে পারেন কিনা সেটিও দেখার।

Comments

comments