সহজ দুটি আমলেই বাড়বে নামাজের সৌন্দর্য

দুটো সহজ অতিরিক্ত আমলের মাধ্যমে আমরা আমাদের নামাজকে আরও সমৃদ্ধ করতে পারি। চলুন জেনে নিই আমলগুলো।

এক.

রুকু থেকে সোজা হয়ে আমরা পড়ি ‘রাব্বানা লাকাল হামদ’ বা ‘রাব্বানা ওয়া লাকাল হামদ’ কিংবা ‘আল্লাহুম্মা রাব্বানা ওয়া লাকাল হামদ’। সবগুলোই সহিহ হাদিস দ্বারা সাব্যস্ত, তবে প্রথমটি আমাদের সমাজে অধিক প্রসিদ্ধ। এর সঙ্গে আমরা পড়তে পারি—

حَمْدًا كَثِيْرًا طَيِّبًا مُبَارَكًا فِيْهِ
(হামদান কাসিরান তায়্যিবান মুবারাকান ফীহি)
অর্থ: তোমারই জন্য অধিক, বরকতময় ও উত্তম প্রশংসা।

এই দোয়াটির ব্যাপারে রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেন, ‘আমি দেখলাম, এ দোয়া পাঠের নেকি কে আগে লিখবে, এ নিয়ে ৩০ জনের অধিক ফেরেশতা প্রতিযোগিতা করছে!’ [বুখারি, আসসাহিহ : ৭৯৯]

কীভাবে পড়বেন?

‘সামিয়াল্লাহু লিমান হামিদা’ বলে রুকু থেকে দাঁড়ানোর পর পড়বেন—‘রাব্বানা লাকাল হামদ। হামদান কাসিরান তায়্যিবান মুবারাকান ফীহি।’ এরপর সিজদায় যাবেন। ইমামের পিছনে যখন জামাতের সাথে সালাত আদায় করবেন, তখনো এটি পড়তে পারেন।

দুই.

আমরা দুই সিজদার মধ্যে একটু বসি। এ সময় একটু সময় বসা সুন্নাহ। নবিজি (সা.) সিজদায় যতক্ষণ সময় ব্যয় করতেন দুসিজদার মাঝখানে ঠিক ততখানি সময়ই বসতেন। এ সময় তিনি পড়তেন—

اللّٰهُمَّ اغْفِرْلِيْ، وَارْحَمْنِيْ، وَاهْدِنِيْ، وَعَافِنِيْ، وَارْزُقْنِيْ.

উচ্চারণ: আল্লাহুম্মাগফিরলি, ওয়ারহামনি, ওয়াহদিনি, ওয়া-‘আফিনি, ওয়ারযুক্বনি।

অর্থ: হে আল্লাহ! আমাকে ক্ষমা করো, রহম করো, হিদায়াত দান করো, নিরাপত্তা দান করো এবং রিযক (জীবিকা) দান করো। [মিশকাত, হাদিস নম্বর ৮৯৩]

সুবহানাল্লাহ! এটি একটি ব্যাপক অর্থবোধক দোয়া, যেখানে একজন মানুষের সকল চাহিদার কথাই চলে এসেছে। তাই দুই সিজদার মধ্যে বসা অবস্থায় এই দোয়াটি পড়া উচিত। বাংলা উচ্চারণে আরবির হুবহু উচ্চারণ সম্ভব নয়। এ জন্য অভিজ্ঞ কোনো ব্যক্তির কাছ থেকে এর সঠিক উচ্চারণ জেনে নিতে হবে। আসুন, আমরা এ ছোট্ট দুটি আমলের মাধ্যমে আমাদের নামাজকে আমরা আরও সৌন্দর্যমণ্ডিত করে তুলি।

Comments

comments