যুবলীগ চেয়ারম্যানের হুশিয়ারি: আপনাকেও অ্যারেস্ট হতে হবে!

যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী বলেছেন, ‘আমাকে অ্যারেস্ট করবেন? করেন। আমি রাজনীতি করি, ১০০ বার অ্যারেস্ট হব। আমি অন্যায় করেছি, আপনারা কী করেছিলেন? আপনি অ্যারেস্ট করবেন, আমি বসে থাকব না। আপনাকেও অ্যারেস্ট হতে হবে। কারণ, আপনিই প্রশ্রয় দিয়েছেন।’

বুধবার বিকালে মিরপুরের দারুসসালাম এলাকায় গোলারটেক মাঠে ঢাকা মহানগর যুবলীগ উত্তরের কয়েকটি ওয়ার্ডের যৌথ ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে এসব কথা বলেন যুবলীগের চেয়ারম্যান।

ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, ‘অপরাধ করলে শাস্তির ব্যবস্থা হবে। প্রশ্ন হলো, এখন কেন অ্যারেস্ট হবে। অতীতে হলো না কেন, আপনি তো সবই জানতেন। আপনি কি জানতেন না? নাকি সহায়তা দিয়েছিলেন—সে প্রশ্নগুলো আমরা এখন তুলব। আমি অপরাধী, আপনি কী করেছিলেন? আপনি কে, আমাকে আঙুল তুলছেন?’

ক্ষুব্ধ যুবলীগের চেয়ারম্যান আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের উদ্দেশে, ‘আপনি বলছেন ৬০টি ক্যাসিনো আছে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আপনারা ৬০ জনে কি এত দিন আঙুল চুষছিলেন? তাহলে যে ৬০ জায়গায় এই ক্যাসিনো, সেই ৬০ জায়গার থানাকে অ্যারেস্ট করা হোক। সেই ৬০ থানার যে র‌্যাব ছিল, তাদের অ্যারেস্ট করা হোক।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন হঠাৎ করে কেন জেগে উঠলেন? কারণটা কী? এটা কি বিরাজনীতিকরণের দিকে আসছেন? দলকে পঙ্গু করার কোনো ষড়যন্ত্রে আসছেন? নিষ্ক্রিয় করার ষড়যন্ত্রে আসছেন?’

উপস্থিত সাংবাদিকদের উদ্দেশে ওমর ফারুক বলেন, ‘পাঁচশ জায়গা নির্ধারণ করলেন ক্যাসিনো চলে, যুবলীগ চালায়। আপনি সাংবাদিক, আপনাকে বলতে হবে, সেই ক্যাসিনোগুলো কোথায়? কারা কারা জড়িত?’

গোয়েন্দা তথ্য নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে যুবলীগের চেয়ারম্যান বলেন, ‘গোয়েন্দারা এতই যদি তৎপর হয়, তাহলে এতদিন কী করেছিলেন? পত্রপত্রিকা যদি এতই তথ্য জানেন; তাহলে এতদিন তথ্যগুলো তুলে আনেননি কেন? আমি কেন জানলাম না? আমরা কেন জানলাম না? আপনি অতীতে জানতেন। লুকিয়ে রেখেছিলেন। কেন?’

নিজের ব্যর্থতার কথাও স্বীকার করে ওমর ফারুক বলেন, ‘আমার ব্যর্থতা আছে, অস্বীকার করছি না। আমি প্রতিটি কাজের জন্য হাততালি পাব,আর অপকর্মের জন্য নিগৃহীত হব না, সেটা তো হয় না। প্রশ্ন আমার এখানে- হঠাৎ কেন জেগে উঠলেন?’

Comments

comments