রুমে এসে ছেলেসহ ৩ জনের লাশ পেলেন ইমাম

মসজিদ সংলগ্ন রুমেই থাকেন ইমাম মাওলানা জামাল উদ্দিন। শুক্রবার জুম্মার নামাজ শুরুর আগে এই রুমে ৫ বছর বয়সী ছেলেকে রেখে ছিলেন তিনি। নামাজের পর এসে দেখেন ছেলে সহ অচেতন অবস্থায় পরে আছে তিন জন। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার দুপুরে চাঁদপুরের মতব দক্ষিণ উপজেলার পূর্ব কলাদী গ্রামে।

নয়া দিগন্তের মতলব (চাঁদপুর) প্রতিবেদক ওমর ফারুক জানিয়েছেন, শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে ৫ বছরের শিশু সন্তানকে রেখে নামাজ পড়াতে যান ইমাম মাওলানা জামাল উদ্দিন। ওই সময় শিশু সন্তানের সাথে আরো ২ জন কিশোর প্রবেশ করে ইমামের রুমে। নামাজ শেষে ইমাম নিজ রুমে ভেতর থেকে আটকানো দেখতে পান। অনেক ডাকাডাকির পর দরজা না খোলায় ভেঙ্গে ইমামসহ উপস্থিত মুসল্লিরা দেখেন রুমের মধ্যে ৩ শিশু-কিশোর অচেতন অবস্থায় পড়ে আছে। এদের দুজন মারা গেছে সেখানেই। একজনকে মতলব হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকেও মৃত ঘোষণা করেন।

চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার পূর্ব কলাদী গ্রামের জামে মসজিদে ইমামতি করেন মাওলানা জামাল উদ্দিন। শিশু সন্তান আব্দুল্লাহস আল নোমান (৫) বাবার সাথেই মসজিদ সংলগ্ন রুমে থাকতো। তাদের বাড়ি বরগুনা জেলায়। নোমানকে রুমে রেখেই মসজিদে প্রবেশ করেন জামাল উদ্দিন। যাওয়ার সময় পার্শ্ববর্তী মতলব দক্ষিণের ভাঙ্গাপাড় মাদরাসায় দুই কিশোর ইব্রাহিম (১২), রিফাত হোসেন (১৫) ‍রুমে ছিলো।

তাৎক্ষনিকভাবে এই ঘটনায় পুলিশের বক্তব্য নেয়া

Comments

comments