ছাত্রলীগ নেতাকে সালাম না দেওয়ায় ছাত্রকে রাতভর নির্যাতন

হল সভাপতিকে সালাম না দেওয়ায় রাত ১টা থেকে শুরু করে ভোর সাড়ে ৫টা পর্যন্ত হলের কক্ষে আটকে রেখে মো. মাকসুদুল হক ইমু নামের এক ছাত্রকে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) ছাত্রলীগের নেতাদের বিরুদ্ধে। গত রোববার দিবাগত রাতে বাকৃবির শহীদ জামাল হোসেন হলে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, নির্যাতনের শিকার ইমু বিশ্ববিদ্যালয়ের পশুপালন অনুষদের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। গতকাল রোববারে হল ছাত্রলীগের সহসভাপতি আব্দুল্লাহ্ হিশ শাফি, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক শাহাদাত হোসেন শাওন এবং পাঠাগার সম্পাদক মো. রাহাত হোসেন রাত ১টার দিকে ওই ছাত্রকে হলের পূর্ব ফাস্ট ব্লকের পাঁচ নম্বর কক্ষে ডেকে নিয়ে যান। পরে তারা ওই ছাত্রের কাছে হল সভাপতিকে সালাম না দেওয়ার কারণ জানতে চান। এর এক পর্যায়ে তারা ইমুকে স্ট্যাম্প দিয়ে মারধর করেন।

নির্যাতনের শিকার মাকসুদুল হক ইমু জানান, মারধরের বিষয়টি অন্য কারও সাথে শেয়ার করতে নিষেধ করেছেন ছাত্রলীগের নেতারা। বিষয়টি জানাজানি হলে জামায়াত-শিবির বলে হল থেকে বের করে দেবেন বলে হুমকি দিয়েছেন তারা।

এ বিষয়ে সহসভাপতি আব্দুল্লাহ্ হিশ শাফি বলেন, ‘ঘটনাটি হলের অভ্যন্তরীণ বিষয়, যার সাথে হল সভাপতি সরাসরি সম্পৃক্ত আছে। এ জন্য তার সাথে আলোচনা না করে কিছু বলতে পারব না ‘

তবে হল সভাপতি দীপক হালদারের দাবি, ওই ঘটনা সম্পর্কে তিনি কিছুই জানেন না।

বিশ্ববিদ্যালয় শাখ ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সবুজ কাজী বলেন, ‘আমি বিষয়টি মাত্র অবগত হয়েছি। ওই শিক্ষার্থীর সাথে কথা বলে জড়িতদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন এই ব্যাপারে ব্যবস্থা নিলে আমরা সহযোগিতা করব।’

এ বিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো. আজহারুল হক বলেন, ‘এই বিষয়ে একটি মৌখিক অভিযোগ পেয়েছি। সংশ্লিষ্ট হলের প্রভোষ্টের সাথে কথা বলে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

Comments

comments