সাতক্ষীরায় শিবির কর্মীদের ওপর হামলা, গ্রেপ্তার ও মিথ্যা খবরের প্রতিবাদে বিবৃতি

সাতক্ষীরায় অন্যায়ভাবে শিবির কর্মীদের উপর ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের হামলা, নির্যাতন, পুলিশের গ্রেপ্তার এবং ছাত্রলীগ নেতার আহত হওয়ার সাথে ছাত্রশিবিরকে জড়িয়ে কিছু গণমাধ্যমের মিথ্যা খবরের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির।

এক যৌথ প্রতিবাদ বার্তায় ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি ড. মোবারক হোসাইন ও সেক্রেটারি জেনারেল সিরাজুল ইসলাম বলেন, সাতক্ষীরায় ছাত্রলীগের সন্ত্রাস এবং পুলিশ ও কিছু গণমাধ্যমের নীতিহীন ভূমিকা চরম লজ্জাজনক। কোন কারণ ছাড়াই ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীরা রাতের অন্ধকারে ছাত্রদের মেসে হামলা চালায়। এসময় ৪ শিবির কর্মীকে নির্যাতন করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পুলিশও দায়িত্বশীলতাকে জলাঞ্জলি দিয়ে ছাত্রলীগ সন্ত্রাসীদের কথা মত তাদের গ্রেপ্তার করে।

অন্যদিকে ছাত্রলীগ নেতার কথিত গুলিবিদ্ধ হওয়ার সাথে ছাত্রশিবিরকে জড়িয়ে মিথ্যাচার করেছে বিডি নিউজসহ কিছু গণমাধ্যম। আর এ ঘটনাকে পুঁজি করে সাধারন ছাত্রদের হয়রানি করছে পুলিশ। ছাত্রলীগ নেতা আজমীর গুলিবিদ্ধ হওয়ার সাথে ছাত্রশিবিরের কোন সম্পর্ক নেই। বরং আজমীর হোসেনই সন্ত্রাসীদের সাথে নিয়ে নিরীহ ছাত্রদের উপর রাতের আধারে হামলা চালিয়েছে। আর তার সাথে ছিল এলাকায় অস্ত্রবাজ হিসেবে পরিচিত জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সৈয়দ সাদিকুর রহমান।

সাদিকুর রহমান গত নির্বাচনেও প্রকাশ্য দিবালোকে অস্ত্রবাজী করেছে এবং বহু বিরোধী মতের নেতাকর্মীদের মাথায় অস্ত্র ঠেকিয়ে হুমকি দিয়েছে। তার সাথে সব সময়ই আগ্নেয়াস্ত্র থাকে। মূলত শিবির কর্মীদের উপর গুলি চালিয়ে ছিল সাদিকুর রহমান। আর সেই গুলিতে আহত হয়েছে আজমীর হোসেন। কিন্তু উদোর পিন্ডি বুধোর ঘারে চাপাতে এ ঘটনার সাথে ছাত্রশিবিরকে জড়িয়ে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে আর পুলিশও নিরাপরাধ শিবির নেতাকর্মীদের উপর নির্যাতন করতে মাঠে নেমে পড়েছে। এই ঘটনার মাধ্যমে প্রমাণ হয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা নয় রবং সন্ত্রাসীদের মদদ দেয়াকেই নিজেদের মূল কর্ম হিসেবে বেছে নিয়েছে পুলিশ।

অন্যদিকে বিডিনিউজের মত গণমাধ্যম ছাত্রলীগ সন্ত্রাসী আর পুলিশের অপকর্ম আড়াল করতে মিথ্যাচারের দায়িত্ব নিয়েছে। এ হামলার ঘটনার সাথে কোনভাবেই ছাত্রশিবিরের কেউ জড়িত নয়। এরপরও নির্বিচারে শিবির নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার হয়রানি ও অপপ্রচার সন্ত্রাস তোষণ নীতিরই বহি:প্রকাশ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, কোন গোষ্ঠির ক্রীড়নক হয়ে দায়িত্ব ভূলে গ্রেপ্তার ও মিথ্যাচার করা পুলিশ ও সাংবাদিকতার পবিত্র দায়িত্বের প্রতি চরম প্রতারণা। যা সন্ত্রাসকে উৎসাহিত করছে। এমন দায়িত্বহীন ভূমিকা অব্যাহত রাখলে জনগণের অনাস্থা ছাড়া তারা আর কিছুই অর্জন করতে পারবে না। যা কোনভাবেই কাঙ্খিত নয়।

নেতৃবৃন্দ গ্রেপ্তারকৃত নিরপরাধ শিবির কর্মীদের মুক্তি, শিবির কর্মীদের উপর হামলা ও নির্যাতনকারীদের গ্রেপ্তার করে শাস্তির আওতায় আনা, নির্বিচারে নিরীহ ছাত্রদের হয়রানি বন্ধ এবং একপেশে অপপ্রচার থেকে বিরত থাকতে পুলিশ ও গণমাধ্যমের প্রতি আহ্বান জানান।

(বিবৃতি)

Comments

comments