প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় মাদরাসা ছাত্রীর গলায় ছুরিকাঘাত

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় দাখিল পরীক্ষার্থী এক মাদরাসার ছাত্রীর গলায় ছুরিকাঘাত করেছে বখাটে যুবকরা। পরে গুরুতর আহত ওই ছাত্রীকে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভূক্তভোগী আহত মাদরাসা ছাত্রীর নাম সুমাইয়া আক্তার জান্নাত (১৬)। সে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার গোসিঙ্গা ইউনিয়নের পাঁচলটিয়া গ্রামের মোঃ সেলিম মিয়া খানের মেয়ে। সুমাইয়া স্থানীয় পটকা সিনিয়র আলিম মাদরাসার দাখিল পরীক্ষার্থী।

শ্রীপুর থানার ওসি মোঃ লিয়াকত আলী ও আহত মাদরাসা ছাত্রীর চাচা হেলিম খানসহ স্বজনরা জানান, প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার সকালে সুমাইয়া আক্তার বাড়ি থেকে হেঁটে মাদরাসায় যাচ্ছিল। পথে বনবিভাগের আকাশি বাগানের সেরার খালের সেতু এলাকায় পৌঁছলে কয়েকজন বখাটে যুবক হঠাৎ ঝোঁপের আড়াল থেকে বের হয়ে সুমাইয়ার পথরোধ করে। এসময় দুর্বৃত্তরা মাদরাসা ছাত্রী সুমাইয়ার গলায় ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়।

এতে গুরুতর আহত হয়ে সুমাইয়া জ্ঞান হারিয়ে নির্জন ওই স্থানেই মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। এ ঘটনার বেশ কিছু সময় পর তার চাচাতো ভাই স্থানীয় গোসিঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র সিয়াম ওই পথ দিয়ে স্কুলে যাওয়ার সময় সুমাইয়াকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে ডাকচিৎকার করলে স্বজনরা এগিয়ে আসে। তারা গুরুতর আহত সুমাইয়াকে প্রথমে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

পটকা সিনিয়র আলিম মাদরাসার সহকারী মৌলভী মোঃ মোবারক হোসেন ও আহতের স্বজনরা জানান, স্থানীয় মাটিয়াগাড়া এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে রেদোয়ান ও সুমাইয়া একই মাদরাসার একই শ্রেণীর শিক্ষার্থী। বখাটে রেদোয়ান বেশকিছুদিন ধরে সুমাইয়াকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল। প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় নানাভাবে সুমাইয়াকে উত্যাক্ত ও হুমকি দিতে থাকে রেদোয়ান। এ ব্যাপারে তাকে একাধিকবার সতর্কও করা হয়। প্রস্তাব প্রত্যাখান করার জেরে রেদোয়ান এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজের আবাসিক চিকিৎসক প্রণয় ভূষণ দাস জানান, আহত সুমাইয়ার গলায় ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে সে এখন শঙ্কামুক্ত।

Comments

comments