শুধু ধর্ষকই নয়, রাষ্ট্রব্যবস্থাও দায়ী: ভিপি নুর

ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর বলেছেন, ‘আমাদের সমাজে যে মূল্যবোধের অবক্ষয় দেখা দিয়েছে, এর বিরুদ্ধে যদি ছাত্রসমাজ সোচ্চার না হয়, তাহলে সমাজ টিকবে না। আমরা দেখতে পাচ্ছি, ৯ বছরের শিশু থেকে ৯০ বছরের বৃদ্ধাও রেহাই পাচ্ছে না। এটির জন্য শুধু ধর্ষকই দায়ী নয়, রাষ্ট্রব্যবস্থাও দায়ী। অবিলম্বে সব ধর্ষককে বিচারের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’

বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে একটি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া সকালে সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্রীদের ব্যানারে সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশ আরেকটি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ মানববন্ধনের আগে অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ থেকে ক্যাম্পাসে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। টিএসসি হয়ে হাইকোর্ট ও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ঘুরে মিছিলটি অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে এসে শেষ হয়।

ঢাবিতে মানববন্ধনএ সময় মিছিলকারীরা ‘অ্যানাফ অব চাইল্ড রেপ’, ‘স্টপ রেপ’, ‘আমার মায়ের সবুজ আঁচলে ধর্ষণের দাগ কেন?’‘করতে হবে প্রতিরোধ, জাগতে হবে মূল্যবোধ’ ইত্যাদি লেখা সম্বলিত ফেস্টুন ব্যবহার করেন। এছাড়া ‘আমার রঙিন শৈশব রক্তাক্ত করো না’, ‘স্ট্যান্ড এগেনস্ট রেপ’, ‘ধর্ষকের উল্লাস, ধর্ষিতার কান্না/আমি অন্ধ, আমি বোবা’ প্রভৃতি লেখা সম্বলিত প্ল্যাকার্ড ব্যবহার করেন রাজু ভাস্কর্যের সামনের মানববন্ধনকারীরা। এ সময় একটি শিশুকেও মানববন্ধনে অংশ নিতে দেখা যায়।

প্ল্যাকার্ড হাতে এক শিক্ষার্থীবাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান বলেন, ‘আমাদের দেশে একের পর এক ধর্ষণের মতো ঘটনা ঘটেই যাচ্ছে। বিচার না হওয়ার জন্যই এসব ঘটছে। এ দেশে চলছে বিচারহীনতার সংস্কৃতি।’

ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আকতার হোসেন বলেন, ‘কোনও ধর্ষণেরই বিচার হচ্ছে না। প্রতিটি ঘটনার বিচার দাবি করছি।’ মানববন্ধন সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হোসেন।

Comments

comments