মিশরের প্রথম নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসির ইন্তেকাল

মিশরের প্রথম নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসি আদালতে মৃত্যুবরণ করেছেন। আদালতের অধিবেশনের পর অচেতন হয়ে যান এবং পরে মারা যান। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদ সংস্থা এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে। আজ সোমবার আদালতে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। আদালতে মুরসির বিচার চলাকালে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। ৬৬ বছর বয়সী মুরসি ডায়াবেটিস, লিভার ও কিডনিজনিত সমস্যায় ভুগছিলেন।

মিসরের প্রথম অবাধ ও গণতান্ত্রিক নির্বাচনে জয়ী হয়ে প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন ব্রাদারহুডের মুরসি। কিন্তু ২০১৩ সালে গণঅসন্তোষের সুযোগ নিয়ে তাকে ক্ষমতাচ্যুত করে মিসরীয় সেনাবাহিনী। পরে প্রেসিডেন্টের মসনদে বসেন সেনাপ্রধান হওয়া আবদেল ফাত্তাহ আল সিসি।

২০১৩ সালে মুরসির নেতৃত্বাধীন মুসলিম ব্রাদারহুডকে নিষিদ্ধ করা হয়। এসময় হাজার হাজার নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের অনেকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ নিয়ে এসে  অন্যায়ভাবে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়া হয়।

২০১৪ সালে তার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ আনা হয়েছিল। এরপর ২০১৬ সালের জুন মাসে তথ্য পাচারের এ মামলায় তাকে দোষী সাব্যস্ত করেন নিম্ন আদালত। আদালত দেশের গুরুত্বপূর্ণ নথি পাচারের অভিযোগে মুরসিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন।

দেশটির প্রথম গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত নেতা হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণের এক বছর পর গণসমাবেশের পর মুরসিকে উৎখাত করা হয়।

Comments

comments