একরাম হত্যার এক বছর: এখনও মৃত্যুর কারন জানেনা পরিবার!

  • মানব-বন্ধন করতেও ভয় পায় মানুষ
  • ফোনে রেকর্ড হয়ে যায় একরামুল নিহত হওয়ার আদ্যোপান্ত
  • একরামুলের স্ত্রীর মুঠোফোন কেড়ে নেওয়ার চেষ্টার অভিযোগ
  • একরামুলের স্ত্রীর দাবি, হত্যার প্রমাণ মুছে ফেলতেই এই চেষ্টা

‘আমি আর কিছু চাই না, শুধু একবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে চাই। রহস্যটা জানতে চাই। কী ছিল আমার স্বামীর অপরাধ? কী অপরাধ করেছিল আমার অবুঝ দুটি বাচ্চা? আমি কী অপরাধ করেছিলাম? কেন আমার নিরপরাধ স্বামীকে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে হত্যা করা হলো? একবার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে এই প্রশ্নগুলোর জবাব চাই।’ কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলেছিলেন কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত টেকনাফের যুবলীগ নেতা ও পৌর কাউন্সিলর একরামুল হকের স্ত্রী আয়েশা বেগম।

২০১৮ সালে ২৬ শে মে মাদক বিরোধী অভিযানে র‍্যাবের সাথে কথিত এক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনি নিহত হন।

কিন্তু পরে একরামুলের মোবাইল ফোনে নিহত হওয়ার আগ মুহূর্তের তার স্ত্রী এবং মেয়ের সাথে কথোপকথন ফাঁস হয়ে গেলে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়।

মুঠোফোনে সর্বশেষ কথা: হ্যালো… আমি কমিশনারের সঙ্গে কথা বলতে চাচ্ছি।… আমি উনার মিসেস বলতেছি… হ্যালো! হ্যালো!…”- উৎকণ্ঠায় উচ্চস্বরে এমনিভাবে কথা বলছেন মোবাইল ফোনের একপ্রান্ত থেকে। অপর প্রান্তের কথার স্বর অনুচ্চ। এর খানিক পর গুলির শব্দ… উহ্… গোঙানি… । এরপর আরেকটি গুলির শব্দ। এপাশে চিৎকার- “ও আল্লা…!”  তারপর দীর্ঘ ১ বছর। মেলেনি কোন বিচার।

একরামের স্ত্রী আয়েশার অভিযোগ, সেই মুঠোফোনটি জিম্মায় নিতে উঠেপড়ে লেগেছে একটি পক্ষ।

আয়েশা বেগম জানান, গত জুলাইয়ে র‍্যাব পরিচয়ে এক ব্যক্তি তাঁদের বাসায় এসে মুঠোফোনটি চান। প্রথমে তিনি তাঁর ও তাঁর মেয়েদের ক্ষতি হতে পারে বলে হুমকি দেন, পরে ২০ লাখ টাকা দেবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন। ওই দিন তিনি আয়েশা বেগমদের বাসায় বিকেল ৪টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত অবস্থান করেন। একরামুলদের পরিবারের আশঙ্কা, একরামুলের খুনিরা হত্যাকাণ্ডের প্রমাণ মুছে ফেলতেই এই চেষ্টা চালিয়েছিল। তাঁরা কথিত বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় যে মামলা করেছেন, সেই মামলার জব্দ তালিকাতেও একটি মুঠোফোন উল্লেখ করেছে। অথচ একরামুল তিনটি ফোন ব্যবহার করতেন। এখনো একরামুলের ফেসবুক প্রায়ই লগ ইন হয়, কিন্ত কারা করেন, তা তাঁরা জানেন না।

আয়েশা জানান, তাঁদের চুপ করে থাকতে বলা হয়েছে। তবে চুপ করে থাকলেও তিনি ও তাঁর দুই মেয়ে এই অবিচারের কথা ভুলবেন না। তাঁরা হত্যাকাণ্ডের বিচার আমৃত্যু চেয়ে যাবেন।

কে চুপ করে থাকতে বলেছে? এমন প্রশ্নের জবাবে আয়েশা বেগম বলেন, একরামুল নিহত হওয়ার পাঁচ দিন পর তিনি কক্সবাজারে সংবাদ সম্মেলন করে অডিও রেকর্ড প্রকাশ করেন। এরপরই সরকারের প্রভাবশালী দুই মন্ত্রী তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার ব্যবস্থা করে দেবেন বলে আশ্বাস দেন। কিন্তু ৯ মাস কেটে গেলেও এখনো পর্যন্ত দেখা করার কোনো ব্যবস্থা হয়নি।

বিবিসি বাংলার সাক্ষাতকারে আয়েশা বেগম বলেন, কষ্ট লাগে, বাচ্চারা প্রতিটা মুহূর্ত তাদের বাবার কথা মনে করে। প্রতিটা সময় কান্না করে, আর বলে বাংলাদেশে কোন বিচার নাই। এসময় তিনি নিজে কান্নায় ভেঙ্গে পরেন।

তিনি বলছিলেন, তার স্বামী হত্যাকাণ্ডের এক বছর হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত তদন্ত শেষে কোন অভিযোগপত্র দেয়া হয়নি। পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা বা অভিযোগ করতে গেলে তাকে নিষেধ করা হয়। কোন মামলা হয়নি। মন্ত্রীরা নিষেধ করেছিল কোন কিছু না করার জন্য। প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করিয়ে দেবেন বলেছিলেন তারা। বলেছিলেন যা বলার প্রধানমন্ত্রীকে বলবেন। এখন পর্যন্ত তো কোন টেলিফোন পেলাম না।”

তিনি আরো বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আমাকে আশ্বাস দিয়েছিলেন সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে এ ঘটনার বিচার করবে সরকার। তদন্ত করে দেখা হবে হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি। কিন্তু গত এক বছর পার হলেও কিছুই হয়নি।

সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রশ্ন উঠে এটা তথাকথিত বন্দুকযুদ্ধ নাকি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড? এই ঘটনার টেকনাফ থানায় র‍্যাব একটা মামলা করে।

একরামুলের স্ত্রী বা পরিবার জানান, হত্যাকাণ্ডের দুই দিন আগে টেকনাফে গুজব ছড়িয়েছিল, একরামুল ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছেন। ঘটনার দিন একটি গোয়েন্দা সংস্থার লোকজন অনবরত একরামুলকে বিরক্ত করছিল। বারবার বলছিল, একরামুল যেন তাদের এক খণ্ড জমি কেনায় সহযোগিতা করে। তাদের চাপাচাপিতেই একরামুল বাধ্য হয়ে বাসা থেকে বের হন। জমির বিষয়টা ছিল অজুহাত।

আয়েশা বলেন, হত্যাকাণ্ডের পর র‍্যাব যে সংবাদ বিবৃতি দেয় তা দেখে মনে হয়েছে একরামুলকে খুন করায় ভীষণ তাড়া ছিল। র‍্যাব লিখেছে, ২৬ মে দিবাগত রাত ১টা ৫ মিনিটে র‍্যাব-৭–এর একটি চৌকস আভিযানিক দল কক্সবাজার জেলার টেকনাফ থানার মেরিন ড্রাইভ এলাকায় অভিযান পরিচালনার সময় গুলিবিনিময়ের সময় যিনি নিহত হন, তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যসায়ী ও ইয়াবা গডফাদার টেকনাফ পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. একরামুল হক কমিশনার (৪৬), পিতা মোজাহার মিয়া ওরফে আবদুস সাত্তার, নাজিরপাড়া, টেকনাফ পৌরসভা, টেকনাফ, কক্সবাজার।

একরামুলের বাবার নাম মোজাহার মিয়া নয়, তাঁর ঠিকানাও নাজিরপাড়া না। নাজিরপাড়া পৌরসভার বাইরে, সদর ইউনিয়নের একটি গ্রাম।

এদিকে নিহত একরামুল হকের স্ত্রী আয়েশা বেগম বলছিলেন পরিস্থিতি এখন এমন দাঁড়িয়েছে, এই এক বছরে স্থানীয় ভাবে একরামুল হকের মৃত্যুর প্রতিবাদের একটা মানব-বন্ধন করতেও মানুষ ভয় পায়।

Comments

comments