দীর্ঘদিন ফোন ভালো রাখার যত উপায়

ফোন কেনার পর প্রতিদিন আমরা না জেনে না বুঝে এমন কিছু কাজ করি যাতে ফোনের মেয়াদ ধীরে ধীরে কমে আসে। এক সময় অচলও হয়ে যায়। অথচ কিছু কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখলেই দীর্ঘদিন ভালো থাকতে পারে আপনার প্রিয় ফোন।

১. নোটিফিকেশনের জন্য ভাইব্রেশন: অনেকে ফোনের বিভিন্ন নোটিফিকেশন পাওয়ার জন্য ভাইব্রেশন মোড চালু রাখেন। এটি করলে ফোনের জন্য স্বাভাবিক কাজ করা কঠিন হয়ে পড়ে। অপ্রয়োজনেও তাকে ভাইব্রেশনের কাজটি করে যেতে হয়।

২. অপ্রয়োজনে অ্যাপ সচল: যেসব অ্যাপ আপনি ব্যবহার করেন না, সেগুলো ফোনের ব্যাটারির ক্ষতি করে। অ্যাপ একবার ওপেন করার পর সেগুলো ব্যবহার না করলে ব্যাকগ্রাউন্ডে অনেক সময় সচল থেকে যায়।

৩. অপ্রয়োজনীয় অনুমতি: পাঠাওয়ের মতো রাইড শেয়ারিং অ্যাপের লোকেশন দরকার হয়। কিন্তু অন্য কোনো অ্যাপের সেটি দরকার হয় না। অথচ অনেকেই সব সময় লোকেশন অন করে রাখেন। এটি ফোনের জন্য ভালো নয়।

৪. এই অ্যাপগুলো থেকে দূরে থাকতে পারলে ভালো: দ্য গার্ডিয়ান তাদের এক প্রতিবেদনে জানায়, ফোন থেকে ফেসবুক অ্যাপ ডিলিট করে দিলে ব্যাটারির মেয়াদ ২০ শতাংশ বেড়ে যায়। ঠিক একইভাবে গুগল ম্যাপ, নেটফ্লিক্স, আমাজন অ্যাপগুলো ব্যবহার না করতে পারলে ফোনের জন্য ভালো হয়।

৫. ব্রাইটনেস: দিন-রাতে যাদের ফোনের ব্রাইটনেস সমান থাকে, তাদের ফোন দ্রুত নষ্ট হয়। এর হাত থেকে বাঁচতে ডিসপ্লে মেন্যু থেকে ব্রাইটনেস সেটিংস ঠিক করা উচিত। এখানে এমন একটি অপশন থাকে, যেটি বাইরের আলোর অনুপাতে ব্রাইটনেস নিজে নিজে ঠিক করে নেয়।

৬. বিছানায় কিংবা বালিশের নিচে ফোন রাখা: এই অভ্যাসটি কমবেশি সবারই আছে। ঘুমের সময় বিছানায় ফোন রাখা ঠিক নয়। বিছানায় রেখে সতর্ক থাকলেও বালিশের নিচে রাখবেন না। এতে ফোনের বিভিন্ন অংশের ওপর চাপ পড়ে। তাপমাত্রার হেরফেরে ব্যাটারিরও ক্ষতি হয়।

৭. সারা রাত চার্জে রাখা: রাতভর ফোন চার্জ দেওয়া ঠিক নয়। আপাতদৃষ্টিতে এতে ফোনের কোনো ক্ষতি চোখে পড়ে না। কিন্তু দীর্ঘ মেয়াদে ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

৮. সফটওয়্যার আপডেট: ফোন দীর্ঘদিন ভালো রাখতে হলে বিভিন্ন সফটওয়্যার সব সময় আপডেট রাখা উচিত। এতে ক্ষতিকর ভাইরাস থেকে মুক্ত থাকে ফোন। ভালো থাকে ব্যাটারিও।

Comments

comments