‘রোহিঙ্গা’ আখ্যা পেলেন ফেরদৌস

আবারও বিতর্কে বাংলাদেশের চিত্রনায়ক ফেরদৌস। পশ্চিমবঙ্গের রায়গঞ্জের তৃণমূল প্রার্থী কানাইয়ালাল আগরওয়ালার হয়ে নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর কারণে আবারও বিতর্কে এসেছেন এই অভিনেতা। অন্য রাষ্ট্রের নাগরিক হয়ে কিভাবে তিনি প্রকাশ্যে ভারতের নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন তা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি তথা মেদিনীপুর লোকসভার প্রার্থী দিলীপ ঘোষসহ অনেকেই ফেরদৌসকে রোহিঙ্গা হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। এছাড়া তার বিরুদ্ধে নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ তুলেছেন অনেকে।

বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, ‘তৃণমূলের কাছে ভোটার নেই। তাই তারা রোহিঙ্গাদের আনছে। প্রচারের লোক না থাকায় বাংলাদেশ থেকে চিত্রনায়ক নিয়ে আসছে।’

নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, ‘উনি এটা করতে পারেন না। আমাদের দেখতে হবে তিনি কোন ভিসা নিয়ে এদেশে এসেছেন।’

ফেরদৌসের নির্বাচনী প্রচারণার বিরোধিতা করেছেন সিপিএম নেতা সুজন চক্রবর্তীও। তিনি বলেন, ‘কোনও বিদেশি আমাদের রাজনৈতিক বিষয়ে এভাবে প্রচার চালাতে পারেন না। এটা অন্যায়।’

রায়গঞ্জের বিজেপি প্রার্থী দেবশ্রী চৌধুরী অভিযোগের সুরে বলেন, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পশ্চিমবঙ্গকে গ্রেটার বাংলাদেশ বানানোর টার্গেট নিয়েছেন। তাই আগেভাগেই ওদের দিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন।’

উত্তর দিনাজপুর জেলা কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক মিহির দাশগুপ্ত বলেন, ‘ফেরদৌসের ভোট চাওয়া দেখে আমি অবাক হয়েছি। অন্যদেশের নাগরিক কখনও আমাদের দেশে ভোটের প্রচারে অংশ নিতে পারেন না।’ তার ভাষায়, ‘অন্য দেশের নায়ক তাদের দেশে এসে শুটিং করতে পারেন। কিন্তু অন্য কাজ করতে পারেন না।’

এদিকে চিত্রনায়ক ফেরদৌসের বিরুদ্ধে ‘ভারতে নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ’ এর সংবাদ বাংলদেশের গণমাধ্যমে প্রকাশের পর সোশ্যাল মিডিয়ায় তার প্রতি ক্ষোভ জানিয়েছেন সাধারন মানুষ।

উত্তম বিশ্বাস নামে একজন লিখেছেন, আমি বাংলাদেশী হিসাবে বলছি ফেরদৌসকে বাংলাদেশ-ভারত দুই দেশেই নিষিদ্ধ করা হোক। কারন বাংলাদেশে তার চেয়েও বড় সেলিব্রেটি আছে। তারা বিদেশে কোন বিশেষ দলের রাজনৈতিক প্রচারে নামেনি। কারন এটা ঐ দেশের সার্বভৌমত্বের উপর চরম আঘাত। কিন্তু ফেরদৌস করেছে। বিদেশে বাংলাদেশের মান ক্ষুন্ন করেছে। কাজেই সর্বক্ষেত্রে তাকে অবাঞ্চিত করা হোক।

রিয়াজুল লিখেছেন, প্রচারের দেখছেন কি? এরপরে যুক্তরাষ্ট্রে ট্রাম্পের পক্ষে, ভেনিজুয়েলার মাদুরোর পক্ষে, কিম জনের পক্ষে এমনকি উগান্ডায়ও তিনি প্রচারে নামবেন। গিনেস বুকে চামচামিতে নাম লেখাবেন।

সামি লিখেছেন, ছিলি বাঙালী, ভাল ছিলি, ভারতে গিয়া ক্যান রোহিঙ্গা খেতাব নিলি? আর সোনার দেশটারে পঁচিয়ে, কতো টাকা পেলি?

এর আগেও বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আ. লীগের পক্ষে প্রচারে নেমে ব্যাপক সমালোচিত হয়েছিলেন ফেরদৌস।

Comments

comments