ফেনীতে অগ্নিদগ্ধ সেই মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত আর নেই

অবশেষে চলেই গেলেন ফেনীর সোনাগাজীর অগ্নিদগ্ধ মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি (১৮)। বুধবার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের চিকিৎসকরা তার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তারা বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে নুসরাতকে মৃত ঘোষণা করেন।

এর আগে শনিবার গুরুতর অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় নুসরাত বার্ন ইউনিটে ভর্তি হন। সোমবার তাকে লাইফ সাপোর্টে নেয়া হয়।

ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাতকে শনিবার সকালে পরীক্ষাকেন্দ্রের ভেতরেই তিন তলা ভবনের ছাদে নিয়ে শরীরে আগুন দিয়ে হত্যার চেষ্টা করে দুর্বৃত্তরা। চারজন বোরকা পরে এ হত্যাচেষ্টায় অংশ নেয় বলে নুসরাত জানায়। এর আগে ২৭ মার্চ ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা তার নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে নুসরাতের শ্লীলতাহানি করে বলে অভিযোগ ওঠে। ওই ঘটনায় থানায় মামলা করলে গ্রেপ্তার হয় অধ্যক্ষ।

নুসরাতের পরিবারের অভিযোগ, অধ্যক্ষের পক্ষের লোকই পরিকল্পিতভাবে নুসরাতকে হত্যা করতে চেয়েছিল।

চিকিৎসকরা জানান, তার শরীরের ৮০ শতাংশ দগ্ধ হয়। এর মধ্যে ৭০ শতাংশই গভীরভাবে দগ্ধ।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নুসরাতের চিকিৎসার দায়িত্ব নেন। তিনি সম্ভব হলে তাকে সিঙ্গাপুর নেয়ার পরামর্শও দেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে বার্ন ইউনিটের চিকিৎসকরা সিঙ্গাপুরের চিকিৎসকদের সঙ্গে নুসরাতের শারীরিক অবস্থা নিয়ে কথা বলেন।

তাকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার নির্মম ঘটনা দেশবাসীর বিবেককে নাড়া দেয়।

Comments

comments