যদি একটা ভোটও পড়তো! আক্ষেপ নির্বাচন কর্মকর্তার

মিরপুর বাংলা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়। এখানে মোট চারটি কেন্দ্র। ১৪৭ নং কেন্দ্রটি মহিলাদের। এ কেন্দ্রে মোট চারটি বুথ। এরমধ্যে দু’টি বুথে কোনো ভোটই পড়েনি। আর দু’টির একটিতে দু’টি, একটিতে ১০টি ভোট পড়েছে ।

কেন্দ্রের ১নং বুথের সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার। রুম ছেড়ে অন্যদের নিয়ে বারান্দায় দাঁড়িয়ে আছেন। অপেক্ষায় থাকছেন একটি ভোটও যদি তার ব্যালট বাক্সে পড়ে।

কিন্তু ঘরির কাটা দুপুর ২টা রেখা অতিক্রম করলেও কোনো ভোটার ভোট দেয়নি তার বুথে। এরইমধ্যে রাস্তা থেকে নারীকে আসতে দেখে ভেবেছিলেন তার ভোট শূন্যতা কাটবে।

কিন্তু তিনিও অন্য বুথের ভোটার। হতাশা নিয়ে এ সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার বলেন, ভাই যদি একটা ভোটও পড়তো। লজ্জায় কিছুই বলতে ইচ্ছে করে না। আর দুই ঘণ্টায় যদি একটা দুটোও ভোট পড়তো। এমন নির্বাচন আর কখনোই দেখিনি। একই চিত্র এ স্কুলের প্রায় সবগুলো কেন্দ্রের কক্ষগুলোয়। কোথাও একটি, দু’টি, আবার কোনটায় ভোট শূন্য।

১৪২,১৪৩, ১৪৪, ১৪৫ ও ১৪৬ কেন্দ্রের বুথ গুলোয় পুরুষদের ভোট কিছু পড়লেও নারীদের ভোট একেবারে নাই। তারা বাকি সময় আসবে কিনা তাও বলতে পারছেন না ১৪৬নং কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার ভুবেনেশ্বর মজুমদার ।

তিনি বলেন, ভোটার কেনো আসছে না আপনারাই দেখতে পাচ্ছেন। সময় শেষের দিকে, হয়ত কিছু ভোট বাড়তে পারে বলে আশা করছি।

Comments

comments