মাদক ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণ করানোর নামে সরকার তামাশা করছে: মোশাররফ

মাদক ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণ করানোর নামে সরকার তামাশা করছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, হঠাৎ করে সরকারের পুলিশ প্রধান গিয়ে লিস্ট করে মাদক ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণ করাচ্ছে। আমাদের প্রশ্ন হলো লিস্টতো আগেও ছিল কেন তাদেরকে একজন একজন করে গ্রেফতার করে এই পর্যন্ত বিচারের আওতায় আনা হলো না।

আজ রোববার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে নারী ও শিশু নির্যাতন: প্রতিরোধ ও প্রতিকার আলোচনা সভায় তিনি এসকল কথা বলেন।

আলোচনা সভার আয়োজন করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি (মহিলা বিষয়ক সম্পাদক)

মোশাররফ বলেন, দেশে এক নায়কতন্ত্র সরকার তাই আজকে দেশের মানুষ বিচার পায় না। গণতন্ত্রের মাতা হচ্ছে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। খালেদা জিয়াকে জেলে রেখে গণতন্ত্রকে মুক্ত করা সম্ভব নয়। জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্য বদ্ধ হয়ে গণতন্ত্রকে মুক্ত করতে হবে।

আজকে যুব সমাজকে ধ্বংস করে দেয়া হচ্ছে। এটা হচ্ছে মূল্যবোধের অবক্ষয়। আমাদের সমাজে যত ধরনের মূল্যবোধ ছিল তা সম্পূর্ণ ভাবে বিনষ্ট করে দেয়া হয়েছে। সম্পূর্ণ ভাবে তলানিতে পড়েছে। এই যে সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয় আমাদের মূল্যবোধের অবক্ষয় আজকে আমাদের সমাজকে কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে।

তিনি বলেন, আজকে একজনের কথায় দেশ চলে। আজকে দেশ এক নায়কতন্ত্রের অধিনে তিনি যা ভালো মনে করেন তাই হবে। তার দলের সমর্থক যদি মাদক ব্যবসায়ী হয়ে থাকে তার বিরুদ্ধে তো আর ব্যবস্থা নেয়া যায় না। তাদের বিচারও করা যায় না। যেহেতু সে সরকারি দলের সমর্থক তাই বিচারকও তার বিচার করতে পারেন না।

তিনি আরও বলেন, যেই শাসন আমলে আমরা এসে উপস্থিত হয়েছি গণতন্ত্রতো দূরের কথা পৃথিবীতে সরকার প্রতিষ্ঠার যেসকল সংজ্ঞা রয়েছে তার কোনো সংজ্ঞায় পড়ে না।

তিনি বলেন, নির্বাচন হওয়ার কথা ৩০ তারিখে ভোট ডাকাতি করে ফেললো ২৯ তারিখে। এই দেশের জনগণের ওপর সরকারের সামান্য তম বিশ্বাস নেই। যদি জনগণের ওপর সরকারের বিশ্বাস থাকতো তাহলে জণগণকে ভোট দেয়ার অধিকার টুকু দিতো। সরকার আগেই জানতে পেরেছে জণগনণ যদি ভোট দিতে পারে তাহলে বহু জায়গায় আওয়ামী লীগের জামানত হারাবে।

বিএনপির মহিলা বিষয়ক সম্পাদক নূরে আরা সাফার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শাহিদা রফিক, বিএনপির প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদিকা রাশেদা বেগম হীরা, মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন প্রমুখ।

Comments

comments