ভোট কারচুপি নিয়ে টাইম ম্যাগাজিনের বিশেষ প্রতিবেদন

‘তারা প্রত্যেককে হুমকি দিয়েছে’, ভোটার দমনের মাধ্যমে বাংলাদেশে শেখ হাসিনার ভূমিধ্বস বিজয়।

রবিবারের ঐতিহাসিক দিনে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার একটি স্কুলের মাঠের বাইরে জনা দশেক ব্যক্তি ধৈর্য ধরে অপেক্ষা করছিল। দিনটি ছিল নির্বাচনের দিন, কিন্তু গেট বন্ধ ছিল।

গয়াল ঘাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মূল ফটকের একটি ছোট জানালা থেকে একজন নির্বাচনী কর্মকর্তা হাসিমুখে জানালেন, এখন “লাঞ্চ ব্রেক”। বিকেল ৩.১০ এর দিকে এই খবর বদলে গেল। পুলিশের একজন সদস্য বললেন, “আমরা ইতিমধ্যে গণনার কাজ শুরু করে দিয়েছি।” অথচ ভোট গ্রহণ ৪ টায় শেষ হওয়ার কথা।

প্রাক-নির্বাচনী সহিংসতা এবং বিরোধী দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) উপর কঠোর নিপীড়নের অভিযোগে ফলাফল কলঙ্কিত হয়েছে। এছাড়াও, নির্বাচনের দিনে ভোট কারচুপি ও ভয় ভীতি দেখানোর ব্যাপক খবর এসেছে, মাঠ পর্যায়ে থেকে টাইমও এমন কিছু ঘটনা প্রত্যক্ষ করেছে।

রবিবারে ভোটারদের দমনের বহু প্রমাণ রয়েছে। পুরান ঢাকার কবি নজরুল ইসলাম কলেজের একটি ভোট কেন্দ্রে গোটা দশেক সরকার সমর্থকদের দ্বারা টাইম প্রতিবেদক নিগ্রহের শিকার হয়েছিল এবং একটি ভিডিও ডিলিট করতে বাধ্য করা হয়, যেটাতে দেখা যাচ্ছিল, একজন নারীর সাথে নির্বাচনী কর্মকর্তারা সংঘর্ষে লিপ্ত হন। ক্রোধে তার ঠোঁট থরথর করে কাপছিল। তিনি বলছিলেন, ভেতর থেকে কেউ একজন তার ভোটিং মেশিনের বাটনে টিপ দিয়েছিল।

শুধু বিএনপি’র সমর্থকরাই অভিযোগ করেননি যে তাদের ভোট দিতে দেওয়া হয়নি, নির্যাতনের ভয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন নারী টাইমকে বলেছেন, “আমি আওয়ামী লীগকে ভোট দিতে চেয়েছিলাম, কিন্তু আমি যখন ভোট কেন্দ্রে যাই, তারা আমাকে বলে আমার ভোট ইতিমধ্যে দেওয়া হয়ে গেছে”।

সূত্র: টাইম ম্যাগাজিন

Comments

comments