গ্রামে গ্রামে পুলিশী অভিযান বন্ধের নির্দেশ হেডকোয়ার্টারের

জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে বিরোধীদল দমনে গ্রামে গ্রামে গিয়ে পুলিশের তল্লাশি করে হয়রানি সৃষ্টি করায় সাধারণ ভোটারদের তোপের মুখে অভিযান বন্ধের নির্দেশনা দিয়েছে পুলিশের হেডকোয়ার্টার।

মনোনয়নপত্র সংগ্রহের পর থেকে বিভিন্ন এলাকায় বিশেষ অভিযানের নামে ধানের শীষের প্রার্থীসহ বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীদের অন্যায়ভাবে গ্রেফতার করছে পুলিশ।

ইতোমধ্যে টাঙ্গাইলসহ বিভিন্ন জায়গায় পুলিশের এই অনৈতিক কর্মকাণ্ড প্রতিরোধ করেছে সাধারণ জনগণ।

টাঙ্গাইল: মঙ্গলবার রাতে টাঙ্গাইলের সখীপুরে গভীর রাতে নাটকীয় অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় সড়কে গাছ ফেলে পুলিশী হামলার প্রতিরোধ করে সাধারণ জনগণ। এ ঘটনায় ৩ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে বলে দাবী করেছে পুলিশ।

কক্সবাজার: গত ৩ ডিসেম্বর পেকুয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা জামায়াত নেতা নুরুজ্জামান মঞ্জুকে গায়েবি মামলায় গ্রেপ্তার করে পুলিশ। অন্যায়ভাবে গ্রেফতারে ক্ষুব্ধ হয়ে সাধারণ মানুষ থানা ঘেরাও করে। এসময় পুলিশ বিক্ষুব্ধ জনতার উপর হামলা চালায় এবং সেখান থেকে আরও দুজনকে গ্রেফতার করে।

এসব ঘটনায় বিব্রত পুলিশ প্রশাসন। তারা মনে করছে সাধারণ মানুষ তাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিচ্ছে। এটি আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর জন্য লজ্জাজনক ব্যাপার। এমনিতেই ক্ষমতাসীন সরকারের নির্দেশে বিরোধীদলসহ সাধারণ মানুষের উপর বিভিন্নভাবে নির্যাতন চালিয়ে সাধারণ মানুষের আস্থা হারিয়েছে প্রশাসন।

তাই সমালোচনা এবং জনরোষ থেকে বাঁচতে গ্রামে-গঞ্জে সরকার বিরোধী রাজনৈতিক নেতাকর্মীদেরকে হয়রানি না করার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে পুলিশ প্রশাসন। এমনই মনে করছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

Comments

comments