সরকারি উদ্যোগে রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা থেকে ছড়ানো হচ্ছে গুজব!

বিগত প্রায় একবছর ধরে গুজব শব্দটি সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ আলোচনা সমালোচনার জন্ম দিয়েছে।

ক্ষমতাসীন সরকারের পক্ষথেকে দাবী করা হচ্ছে, বিরোধী মতাদর্শের নেতা কর্মীরা বিভিন্ন ভাবে গুজব ছড়িয়ে সরকারকে হেয় করার চেষ্টা করছে।

কিন্তু বাস্তবে তার বিপরীত দেখা যাচ্ছে। এমনকি রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা বাসসের পক্ষ থেকে এই গুজব ছড়ানো হচ্ছে।

গতকাল সোমবার বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় সব সংবাদমাধ্যমে ইউরোপীয় পার্লামেন্টারি প্রতিনিধিদল’ নিয়ে একটি খবর প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়েছে । যে খবরটি মূলত ভিত্তিহীন গুজব।

প্রথম আলো, ডেইলি স্টার, নিউ এইজ, ঢাকা ট্রিবিউন, কালের কণ্ঠ ইত্যাদিসহ দেশের শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যমগুলোতে বাসস প্রেরিত ভূয়া খবরটি গুরুত্বের সাথে প্রচার করে।

প্রথম আলো ‘‘বাংলাদেশ সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনে সক্ষম : ইইউ” শিরোনাম দিয়ে লিখেছে, সফররত ইউরোপীয় পার্লামেন্টারি প্রতিনিধিদল বলেছে, বাংলাদেশ সরকার আগামী সাধারণ নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে আয়োজনে সক্ষম। নগরীর একটি হোটেলে রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের রক্ষণশীল সদস্য রুপার্ট ম্যাথুস বলেন, বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সাথে কথা বলে যতটুকু জেনেছি তাতে আমি আস্থাশীল, এই দেশের আগামী সাধারণ নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হবে।

কালের কণ্ঠ  ‘‘যে কারনে পর্যবেক্ষক পাঠাবে না ইউরোপীয় ইউনিয়ন’’ শিরোনাম দিয়ে লিখেছে, জাতীয় নির্বাচনের জন্য সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রয়েছে। আর এই কারনে আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে কোন পর্যবেক্ষক দল পাঠাবেনা ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

কিন্তুু বাস্তবে বাংলাদেশের জাতীয় নির্বাচন পর্যবেক্ষনে আজ ঢাকায় এসে পৌঁছেছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্যরা। অনুসন্ধানে দেখা যায়, বাংলাদেশের রাষ্ট্রিয় বার্তা সংস্থা বাসস কর্তিক সংবাদটি অসত্য ও বিভ্রন্তিকর যাকে এক শব্দে গুজব বলা চলে।

বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা বাসস এই প্রতিনিধিদলকে ‘ইউরোপীয় পার্লামেন্টারি প্রতিনিধিদল’ হিসেবে উল্লেখ করলেও ইউরোপীয় একটি থিংকট্যাংক প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট ভিন্ন কথা বলছে। ইউরোপিয়ান থিংকট্যাংক সংস্থা SADF এর আয়োজনে এই প্রতিনিধি দলটি বাংলাদেশে এসেছে, যাতে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের একাধিক সদস্যের সাথে SADF এর কর্মকর্তা এবং অন্যরা ছিলেন। (উপরের প্যারায় দেয়া ব্যক্তিদের নাম ও পদবীগুলো দেখুন)। বলা বাহুল্য যে, বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমগুলোতে ‘ইউরোপীয় পার্লামেন্টারি প্রতিনিধিদল’ হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেয়া ব্যক্তিবর্গের নামই SADF এর ওয়েবসাইটে দেখা যাচ্ছে।

SADF-ও তাদের রিপোর্টে প্রতিনিধিদলটিকে ‘(high level) European delegation’ বলছে, বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমে প্রচারিত (ভুল) তথ্যের মতো করে ‘’ইউরোপীয় পার্লামেন্টারি প্রতিনিধিদল’ বা ’European Parliamentary delegation’ বলেনি।

কোনো প্রাইভেট সংস্থার আয়োজনে কোথাও ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের সদস্যরা ভ্রমণ করলে তা ‘ইউরোপীয় পার্লামেন্টারি প্রতিনিধিদল’ হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। কারণ, ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের ম্যান্ডেট ছাড়া কোনো পার্লামেন্টারি ডেলিগেশন (প্রতিনিধদল) গঠিত হতে পারে না। এবং একই কারণে তাদের কোনো বক্তব্যকে ‘ইউরোপীয় ইউনিয়নের বক্তব্য’ হিসেবে গ্রহণ করার কোনো সুযোগ নেই।

তথ্যসূত্র: বিডিফ্যাক্টচেক

আরও পড়ুন: নির্বাচনী উত্তাপ: ইইউ’র প্রতিনিধি দল ঢাকায়

Comments

comments