কীভাবে গদি থেকে নামাতে হয় তা জানি : মান্না

‘গদি ছাড়তে হবে, ভোট দেয়ার অধিকার দিতে হবে। আর যদি তা না হয়, তবে কীভাবে গদি থেকে নামাতে হয় তা জানি।’ শনিবার বিকেলে চট্টগ্রাম বিএনপির মহানগর অফিসের সামনে ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে ফ্রন্টের অন্যতম নেতা ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকার সবসময় বলার চেষ্টা করছে তাদের অধীনে নির্বাচন হবে। আমরা স্পষ্টভাবে বলতে চাই, তোমাদের অধীন নির্বাচন হবে না। ’

জাতীয় ঐক্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমাদের লক্ষ্য একটাই এ সরকারের পতন চাই। আমাদের ঐক্য আছে, ঐক্য থাকবে। ধীরে ধীরে স্বাধীনতার বিরোধী শক্তি ছাড়া সবাই এই ঐক্যে শামিল হবেন।’

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা আওয়ামী লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর বলেন, ‘এই আওয়ামী লীগ বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ নয়। এটা তাজউদ্দীনের আওয়ামী লীগ নয়। এটা লুটপাটের আওয়ামী লীগ। আমরা বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ করি। গণতন্ত্রের মুক্তির জন্য তাই ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্য করেছি। এই ঐক্য ক্ষমতার ঐক্য নয়, জনতার ঐক্য।’

তিনি আরও বলেন, ‘সরকার যদি উন্নয়ন করে থাকে তাহলে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে এত ভয় পাচ্ছে কেন? উন্নয়ন হয়ে থাকলে মানুষকে এত ভয় কেন! তাহলে বুঝতে হবে, ডাল ম্যা কুচ কালা হ্যায়।’

বিএনপির চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেনের সভাপতিত্বে এ জনসভার প্রধান অতিথি গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেন। আর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ জনসভার প্রধান বক্তা।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, বরকত উল্লাহ বুলু, মোহাম্মদ শাহজাহান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, জয়নুল আবদিন, গোলাম আকবর খন্দকার, আবুল খায়ের ভুঁইয়া, ফরহাদ হালিম ডোনার, কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমসহ জোটের নেতৃবৃন্দ সভামঞ্চে উপস্থিত রয়েছেন।

জনসভার প্রথম বক্তৃতা করেন উত্তর জেলা বিএনপির নেতা বেলায়েত হোসেন ও নাজিম উদ্দিন।

জাতীয় যুক্তফ্রন্ট গত ২৪ অক্টোবর সিলেটে জনসভা করার মধ্য দিয়ে সাত দফা দাবিতে জনমত গঠনের কর্মসূচি শুরু করে। চট্টগ্রামে হচ্ছে তাদের দ্বিতীয় জনসভা।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে লালদীঘি মাঠে জনসভায় অনুমতি চেয়ে গত ২১ অক্টোবর পুলিশের কাছে আবেদন করা হয়েছিল। কিন্তু সেখানে অনুমতি না দিয়ে ২৫টি শর্তে বিএনপির কার্যালয় নাসিমন ভবনের সামনে এই জনসভা করার অনুমতি দেওয়া হয়।

নাসিমন ভবনের সামনে উত্তর-দক্ষিণমুখে নির্মিত মঞ্চের ব্যানারে অবাধ, সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য নির্বাচন, খালেদা জিয়াসহ সকল রাজবন্দির নিঃশর্ত মুক্তিসহ সাত দফা দাবির কথা লেখা রয়েছে।

খালেদা জিয়া এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর মুক্তি এবং তারেক রহমানের সাজার রায় বাতিলের দাবি সম্বলিত দুটি ডিজিটাল ব্যানারও টানানো হয়েছে জনসভাস্থলে।

জনসভায় আসা নেতা-কর্মীদের জাতীয় পতাকার পাশাপাশি খালেদা জিয়ার আলোকচিত্র সম্বলিত ব্যানার-প্ল্যাকার্ড বহন করতে দেখা গেছে।

পুলিশের দেওয়া শর্ত অনুযায়ী এই জনসভা শেষ করতে হবে বিকাল ৫টার মধ্যে। এই কর্মসূচি ঘিরে নগরীর বিভিন্ন স্থানে বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

Comments

comments