গণবিষ্ফোরণ ঠেকাতে ১০ হাজার সাউন্ড গ্রেনেড আনছে পুলিশ

নির্বাচনকে সামনে রেখে বিক্ষুব্ধ জনতার গণবিষ্ফোরণ ঠেকাতে আবারো ১০ হাজার সাউন্ড গ্রেনেড আমদানি করছে পুলিশ। ২০১৪ সালের ৫ ই জানুয়ারি বিতর্কিত নির্বাচনের পর থেকে ক্ষমতাসীন সরকারের প্রতি জনগণের জমে থাকা ক্ষোভ যে কোন সময় বিষ্ফোরিত হতেপারে এমন আশঙ্কা করছে সরকার।

সূত্রে জানা যায়, ক্ষমতাসীন সরকারের আদেশে অতি দ্রুততম সময়ের মধ্যে ১০ হাজার সাউন্ড গ্রেনেড আনছে পুলিশ। দক্ষিণ কোরিয়া থেকে এই ক্ষতিকর গ্রেনেড আমদানি করা হচ্ছে বলে খবরে প্রকাশ।

এর আগে ২০১৩ সালে বিএনপি-জামায়াতের আওয়ামী দুঃশাসন বিরোধী গণআন্দোলন ও ৫ মে রাজধানীর মতিঝিলে হেফাজতের অবস্থান কর্মসূচি ঠেকাতে অতি মাত্রায় সাউন্ড গ্রেনেড ব্যবহার করে পুলিশ।

অনির্বাচিত সরকার বিরোধী গণআন্দোলন ঠেকাতে পুলিশের এ্যাকশন

বিশ্লেষকরা বলছেন, কোটা সংস্কার আন্দোলন, সাধারন শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ক্ষমতাসীন সরকারের মনে এরি মধ্যে ভীতি সৃষ্টি করেছে। তাই যে কোন সময় গণবিষ্ফোরণের অশঙ্কায় সরকার পূর্ব প্রস্তূতি গ্রহন করছে।

সাউন্ড গ্রেনেড মানুষের শ্রবন শক্তির জন্য খুবই ক্ষতিকর। বিকট শব্দের কারণে বধিরতা দেখা দিতে পারে, দীর্ঘ মেয়াদে শরীরেও ক্ষতিসাধন হতে পারে। মানুষের কানের কাছে বিস্ফোরণ ঘটলে স্থায়ী বধিরতার শঙ্কা রয়েছে। তুলনামূলক দূরে থাকলে স্বাভাবিক শ্রবণে সমস্যা হবে। তা ছাড়া হৃদকম্পন বাড়াসহ দীর্ঘ মেয়াদে নানা ক্ষতির আশঙ্কা রয়েছে। এর ব্যবহার কতটুকু যৌক্তিক তা নিয়ে বোদ্ধামহলে গুঞ্জণ ছিলো শুরু থেকেই।

Comments

comments