কিশোরীকে ধর্ষণ করল যুবলীগ নেতা, গ্রেফতার ৫

ফেনীর সোনাগাজীতে এক কিশোরীকে গণধর্ষণের অভিযোগে বগাদানা ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি মাঈন উদ্দিনসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার মধ্যরাতে তাদের নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানায়, সোনাগাজী আলমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে সোমবার বিকেলে হতদরিদ্রদের জন্য কম মূল্যে বিক্রি করা ১০ টাকা দরের চাল কিনে বাড়ি ফিরছিল কিশোরীটি। এ সময় স্থানীয় তিন বখাটে মেয়েটিকে জোরপূর্বক মুখ চেপে ধরে পার্শ্ববর্তী জঙ্গলে নিয়ে ধর্ষণ করে।

একপর্যায়ে কিশোরী মেয়েটি অচেতন হয়ে পড়লে বাড়িতে পাঠানোর জন্য তাকে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় তুলে দিয়ে পালিয়ে যায় তিন বখাটে। ওই সিএনজিচালক মেয়েটিকে নির্জন স্থানে নিয়ে ফের ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় মেয়েটির জ্ঞান ফিরলে সে দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে বাড়িতে এসে পরিবারকে ঘটনাটি জানালে মেয়ের বাবা স্থানীয় ইউপি সদস্যকে বিষয়টি জানান।

মঙ্গলবার বিকেলে ইউপি সদস্য মহিউদ্দিন অভিযুক্ত তিন বখাটে জয়নাল আবেদীন (২০), নজরুল ইসলাম (২১) ও আনোয়ার হোসেনকে (২২) ডেকে গ্রাম্য সালিশের মাধ্যমে নাকে খত দিয়ে ছেড়ে দেন। এ সময় নির্যাতনের শিকার মেয়ের বাবাকে বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি না করার জন্য বলা হয়।

একই দিন মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে ওই কিশোরীর বাবা সোনাগাজী মডেল থানায় ওই তিন বখাটে, সিএনজি চালক আলমগীর হোসেন (২৩), বগাদানা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি ও ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মহিউদ্দিনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও কয়েকজনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

সোনাগাজী মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পুলিশ মধ্যরাতে অভিযান চালিয়ে ইউপি সদস্যসহ এজহারনামীয় পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতার আসামিদের আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Comments

comments