অনৈতিক কাজে ধরা পড়ে গণপিটুনি খেল ছাত্রলীগ নেতা

বুয়েট ছাত্রলীগের নেতা তাহমিদ, ছবি সংগৃহীত।

জাবি: জাতীয় শোক দিবসে কথিত বান্ধবীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ার পর সাধারণ শিক্ষার্থী ও নিরাপত্তাকর্মীদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করার অভিযোগে গণপিটুনির শিকার হয়েছেন বুয়েট ছাত্রলীগের নেতা তাহমিদ আহমেদ।

বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরনো রেজিস্ট্রার ভবনের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

তাহমিদ নামে ওই ছাত্রলীগ নেতা বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের যন্ত্রকৌশল বিভাগের ১৪তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ও আহছানউল্লাহ হলের আবাসিক ছাত্র। তিনি বুয়েট ছাত্রলীগের আহছানউল্লাহ হল ইউনিটের পাঠাগারবিষয়ক সম্পাদক।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরনো প্রশাসনিক ভবনের সামনের বেঞ্চে তাহমিদ তার বান্ধবীর সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় বসেছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন তার পরিচয় জানতে চাইলে সে প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তার সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন এবং জোর গলায় চিৎকার করেন।

তার চিৎকার শুনে আশপাশের শিক্ষার্থীরা সেখানে জড়ো হন। পরে নিরাপত্তাকর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা তাকে নিরাপত্তা অফিসে যেতে বলেন। তাকে ধরে নিরাপত্তা অফিসে যাওয়ার সময় তিনি নিজেকে বুয়েট ছাত্রলীগের পাঠাগার সম্পাদক হিসেবে পরিচয় দেন।

একপর্যায়ে তিনি আক্রমণাত্মক আচরণ ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে শুরু করেন। এ সময় উপস্থিত সবাই তাকে থামাতে গেলে তিনি জাবির এক শিক্ষার্থীর বুকে লাথি মারেন। এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের গণপিটুনির শিকার হন তাহমিদ।

পরে বেলা ১২টার দিকে নিরাপত্তা কর্মকর্তারা তাকে উদ্ধার করে নিরাপত্তা অফিসে নিয়ে যান। এ সময় মুচলেকা নিয়ে তার কথিত বান্ধবীর জিম্মায় তাহমিদকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন বলেন, ‘তিনি সাধারণ শিক্ষার্থী ও নিরাপত্তাকর্মীদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করায় শিক্ষার্থীরা তার ওপর ঔদ্ধত্য হন। পরে আমরা তাকে উদ্ধার করে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছি।’

যুগান্তর

Comments

comments